অঙ্কিতা ব্যানার্জীর কবিতা ‘অভিমানী প্রেম’

এ বসন্তদিনে প্রেমপদ‍্যই মানায় আমি নাহয় আজ বিরহী দুচোখ মেলে বলি ফাগুন, কষ্টও পেতে হয়! প্রেম ছেড়ে যাক ,জলে ভরে

সুচেতনা গুপ্তর অনুগল্প ‘বুরা না মানো, আজ হোলি হ্যায়’

হোলি হ্যায়! উফ, আবার শুরু হলো। সবে সকাল দশটা। এর মধ্যেই গোটা কমপ্লেক্স জুড়ে লোকে লোকারণ্য। সুতপার কাছে এই দিনটা

দোলা সেনের গল্প ‘বসন্ত –রাগ’

শনির রাতে দমকা ঝড় উঠল। হালকা, খুব হালকা ধারাপাত। তাতেই রবিবারের সকালটায় বেশ শিরশিরে আমেজ। ছটার সময় নিত্যকার প্রাতঃভ্রমণে যাই

সৃজনী মুখার্জীর অনুগল্প ‘সব চরিত্র কাল্পনিক’

সৃজনী মুখার্জী সিগন্যালটা লাল হতেই মানুষের দঙ্গল টার সাথে একজন বৃদ্ধাও রাস্তা পার হচ্ছেন বয়সের ভারে ঈষৎ ন্যুব্জ ; দেখতে

দেবারতী পাঠক চ্যাটার্জীর গল্প “এক বৈশাখে দেখা হল দুজনায়…”

এই সুন্দর স্বর্নালী সন্ধায়…. একটানা গানের আওয়াজ ভেসে আসছে পাশের বাড়ি থেকে।   মল্লিকা দি গান গাইছে। খুব সুন্দর গান

শেলী নন্দীর কবিতা ‘মন্দ হলে ‘

অবুঝ মনের অবাধ্যতায় ডাক পড়ে সর্বনাশী খেলার। গোপন থেকে সঙ্গোপনে কুড়িয়ে রাখি ইচ্ছে পালক। মন্দ হওয়ার বেপরোয়া শক্তিতে পরাজিত হয়

ইন্দ্রজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের ব্যঙ্গ ‘স্বচ্ছ ভারত’

মাইরি বলছি। এমন তাজ্জব কথা শালা বাপের জন্মে শুনিনি। হলফ করে কইতে পারি, আপনারাও শোনেননি। তবে সে নিয়ে মাথাব্যথার প্রয়োজন

মৌমিতা গুঁইর কবিতা ‘নীলস্বপ্ন’

আমার দুঃখের সূর্য ঝলমল করে আকাশে রাতের তারারা মিটিমিটি চায় ভাবসম্প্রসারণের চাঁদ হোক যতই ঝলসানো রুটি, রুটিতে যে বড্ড অরুচি।

দিল্লিতে বাংলা বইয়ের মেলা

বর্ণালী চন্দ দিল্লি বেঙ্গল অ্যাসোসিয়েশনের আয়োজিত বইমেলাটি এবারে ষোড়শী হলেন । চারিদিকে শুধু বাংলাবই দেখা আর পছন্দসই বই কেনা,এযেন এক